বিধ্বংসী ঘূর্ণিঝড় আমফানে বিধ্বস্ত গোটা দক্ষিণবঙ্গ, মৃত প্রায় ১২ জন

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় উদ্বিগ্ন ভাবে বলেন, ‘সর্বনাশ হয়ে গিয়েছে,ক্ষয়ক্ষতি ছাড়াও প্রায় ১০-১২ জন প্রাণ হারিয়েছেন, এমন প্রলয় আগে দেখিনি’।

0
166 Views

বুধবার বিকেলে আবহাওয়া দপ্তরের কথা মতোই স্থলভাগে আছড়ে পড়ে ধ্বংসলীলা চালালো সুপার সাইক্লোন আমফান।বিধ্বংসী ঝড়ের কারণে লন্ডভন্ড হয়ে গেছে দক্ষিণবঙ্গের বেশ কয়েকটি জেলা। ভয়াবহ বিপর্যয়ের কবলে ভয়ানক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে কাকদ্বীপ, নামখানা; বাদ পড়েনি সুন্দরবনও। এদিন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় উদ্বিগ্ন ভাবে বলেন, ‘সর্বনাশ হয়ে গিয়েছে,ক্ষয়ক্ষতি ছাড়াও প্রায় ১০-১২ জন প্রাণ হারিয়েছেন, এমন প্রলয় আগে দেখিনি’।

বিধ্বংসী ঝড়ের প্রভাবে দক্ষিণবঙ্গ প্রায় সর্বস্বান্ত। বসিরহাট মহকুমা, সুন্দরবন, দক্ষিণ ২৪ পরগনা  লন্ডভন্ড হয়ে গিয়েছে। এর মধ্যে হাওড়ার শিবপুরের বাসিন্দা ১৩ বছরের কিশোরী লক্ষ্মী কুমারী সাউ  প্রাণ হারান। উত্তর ২৪ পরগনার মিনাখায় ৫৬ বছরের নুরজাহান বেওয়া, মাটিয়া থানা এলাকায় ২০ বছরের মহন্ত দাস এবং বসিরহাটের  ১ জন গাছ চাপা পড়ে প্রাণ হারান। শ্রীরামপুর ২,বজবজে ৪, বেহালায় ১ জনের  বিদ্যুৎপৃষ্ঠ হয়ে মৃত্যু হয়েছে। এছাড়াও ভূপতি নগরে দেওয়াল ধসে পড়ে ১ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া যায়।  এ বিষয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘এখনো পর্যন্ত ১০-১২ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে, তবে দূর-দূরান্ত থেকে এখনো কোনো খবর পাওয়া যাচ্ছে না। পরে হয়তো মৃতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে’।

Read more: https://thepolicytimes.com/super-cyclone-amphan-to-hit-the-land-at-high-speed-warning-issued-through-miking-in-coastal-areas/

ভয়ানক সাইক্লোনে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে দক্ষিণ ২৪ পরগনা, কাঁচা বাড়ি সহ প্রচুর পাকা বাড়িও। সুন্দরবনের বহু জায়গায় নদী বাঁধ ভেঙে পড়েছে। বকখালি, ফ্রেজারগঞ্জ, পাথর প্রতিমা, বাসন্তী, কুলতলী, নামখানা বেশ ক্ষতিগ্রস্ত। রাস্তাঘাটে ল্যাম্পপোস্ট, গাছ ভেঙে পড়েছে, কচুবেড়িয়ার জেটিঘাটের অর্ধেক অংশ ভেঙ্গে জলে তলিয়ে গেছে, তবে এরই মাঝে প্রায় ১০ হাজার ৮০০  জনকে কুলতলী ব্লক থেকে নিরাপদ আশ্রয়স্থলে সরানো হয়েছে। হাওড়া শহরে শিবপুর, টিকিয়া পাড়া, লিলুয়া, বালি সব জায়গা জলমগ্ন হয়ে পড়েছে। এছাড়া বাড়ির পাঁচিল ভেঙ্গে অনেক গাড়ি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে; সর্বত্র এখন ধ্বংসের চিত্র। হুগলীর বহু জায়গায় গাছ উপড়ে বিদ্যুতের তার ছিঁড়ে গেছে।প্রায় ৪০০ টি বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

আবহাওয়া দপ্তরের দাওয়া তথ্য অনুযায়ী কলকাতা শহরের ঘন্টায় প্রায় ১৩৩ কিমি বেগে ঘূর্ণিঝড় আছড়ে পড়ে।  মারাত্মক ঘূর্ণিঝড়ে শহরের একের পর এক গাছ ভেঙে পড়ায় রাস্তা বন্ধ হয়ে যায়, বেশ কয়েকটি এলাকায় বিপজ্জনক বাড়ির কিছু অংশ ভেঙে পড়েছে, বাতিস্তম্ভ ভেঙে পড়ে বিদ্যুতের তারও ছিঁড়ে গিয়েছে। শহরে ৫৯ টি বিপজ্জনক বাড়ি থেকে প্রায় সাড়ে সাত হাজার লোককে স্থানান্তর করা গিয়েছে। এদিকে কলকাতা নিউ আলিপুর রোড, বোসপুকুর সার্কুলার রোড, রাসবিহারী এভিনিউ, এ জি সি বোস রোড, টালা পার্ক, গোল পার্ক, পাটুলি সহ শহরের একাধিক গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় জলমগ্ন হয়েছে এবং গাছ উপড়ে পড়ে রাস্তা অবরুদ্ধ হয়ে যাওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

Read more: https://thepolicytimes.com/chief-minister-mamata-banerjee-has-announced-a-special-discount-to-normalize-public-life-during-the-lockdown/

এদিন মমতা বন্দোপাধ্যায় নবান্ন থেকে জানান, ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ এবং প্রাথমিক পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে আজ দুপুর তিনটের সময় টাস্কফোর্সের বৈঠক ডাকা হয়েছে। তবে, এই সময় রাজনীতি নয়, মানবিকতার প্রতি আস্থা রেখে সকলের কাছে সহযোগিতার অনুরোধ করেছেন তিনি।

Summary
Article Name
বিধ্বংসী ঘূর্ণিঝড় আমফানে বিধ্বস্ত গোটা দক্ষিণবঙ্গ, মৃত প্রায় ১২ জন
Description
মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় উদ্বিগ্ন ভাবে বলেন, ‘সর্বনাশ হয়ে গিয়েছে,ক্ষয়ক্ষতি ছাড়াও প্রায় ১০-১২ জন প্রাণ হারিয়েছেন, এমন প্রলয় আগে দেখিনি’।
Publisher Name
the policy times
Publisher Logo

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here